শনিবার, ২৫ মে, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
সিলেটের অলস গ্যাস কুপ থেকে গ্যাস উত্তোলনের আবেদন যুবলীগ সভাপতির  » «   গোলাপগঞ্জে বৃদ্ধকে বাস থেকে ‘ধাক্কা দিয়ে ফেলে’ হত্যা করলো হেলপার  » «   ওসমানীনগরে থানা পুলিশের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল সম্পন্ন  » «   লন্ডনের ওভাল ক্রিকেট স্টেডিয়াম থাকবে সিলেটিদের দখলে  » «   রাজনগরে মনু নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধে ভাঙ্গন, বন্যার আশঙ্কা  » «   বালাগঞ্জে আদালতের রায় উপেক্ষা করে জায়গা নিয়ে সংঘর্ষ, আহত-৯  » «   সংস্কারের অভাবে বিশ্বনাথ বাইপাস সড়কের বেহাল অবস্থা : রাস্তা নয় যেন পুকুর  » «   শমশেরনগর-বিমানবন্দর সড়কে ড্রেনেজ ধ্বসে গর্ত, জনদুর্ভোগ চরমে  » «   মৌলভীবাজারে বন্যায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, তলিয়ে গেছে দেড় হাজার একর আউশ ক্ষেত  » «   বানিয়াচঙ্গে শিশু ধর্ষণের ঘটনায় ৮ম শ্রেণির ছাত্র গ্রেফতার  » «  

জেলা প্রশাসনের ইফতার : দাওয়াত পাননি মেয়র আরিফ, ক্ষোভ প্রকাশ

সুরমা নিউজ:
শুক্রবার ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে সিলেট জেলা প্রশাসন। এতে সিলেটের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ, জনপ্রতিতিনিধি ও সুধীজনদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। তবে এই ইফতার মাহফিলে আমন্ত্রন পাননি সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

তবে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা বলছেন, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হচ্ছেন সিলেট নগরবাসীর অভিভাবক। তিনি নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি। তাকে জেলা প্রশাসনের ইফতার মাহফিলে দাওয়াত না দিয়ে নগরবাসীকে অপমান করা হয়েছে। এরকম কাজ কোনভাবেই কাম্য নয়। কারণ তিনি দলমত নির্বিশেষে সিলেটের সকল নাগরিকের অভিভাবক।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী শুধু আমাদের মেয়র নয় তিনি আমাদের অভিভাবক। তাকে দাওয়াত না দিয়ে অপমান করা মানে আমাদের সবাইকে অপমান করা। প্রশাসনের বুঝা উচিত, একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে মেয়র বহু উপরে অবস্থান করেন। সরকার যদি মেয়রদেরকে প্রতিমন্ত্রীর যে মর্যাদা দিয়েছিল। তা বহাল রাখতে, তাহলে তিনি প্রতিমন্ত্রীর সমমর্যাদার পেতেন। এছাড়া তিনি দলীয় বিবেচনায় কোন কাজ করছেন বলে আমাদের মনে হয় না। সেজন্য ভবিষ্যতে যাতে এর পুনরাবৃত্তি না হয়।

এ ব্যাপারে সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, ইফতার মাহফিলের বিষয়টি আমি জানি না। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাকে ইফতার মাহফিলের কোনো দাওয়াত দেয়া হয়নি।

তিনি বলেন, নগরবাসীর মনোনীত প্রতিনিধিকে এরকম আয়োজনে আমন্ত্রণ না জানানো নগরবাসীকেই উপেক্ষা করার শামিল।

এ বিষয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সন্দীপ কুমার সিংহ বলেন, ইফতার মাহফিলে কাদের দাওয়াত দেয়া দেয়া হয়েছে বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি ঢাকা ছিলাম। আপনি জেলা প্রশাসনের আরডিসির সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসনের (আর ডিসি) উম্মে সালিক রুমাইয়া বলেন, দাওয়াতের বিষয়টি আমার দায়িত্বে ছিল না। আপনারা এনডিসি বা এডিএম শাখায় যোগাযোগ করে দেখেন।

পরে সিলেট জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ নাসির উল্লাহ খান ও সিলেট জেলা প্রশাসকের এনডিসি মুহাম্মদ এরশাদ মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলেও এটা তাদের দায়িত্ব নয় বলে জানিয়েছেন। এটি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শাখার দায়িত্ব।

এ বিষয়টি জানতে সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলামের যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।

শুক্রবার (১৭ মে) সিলেট সার্কিট হাউজে আয়োজিত জেলা প্রশাসনের ওই ইফতার মাহফিলে সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে এ মোমেন, বিভাগীয় কমিশনার মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানসহ সিলেটের সব সরকারি অফিস-আদালত ও প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, রাজনৈতিক, সামাজিক ও সুশীল সমাজের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!