বুধবার, ২২ মে, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
সিলেটে ইষ্টিকুটুম-মধুবনকে জরিমানা, নিষিদ্ধ মোল্লা লবণ-পচা খেজুর জব্দ  » «   সিলেটে অবৈধ মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড গুড়িয়ে দিয়েছে সিসিক  » «   সিলেটে ফিজায় মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য  » «   জগন্নাথপুরে জিনের ‘গুপ্তধন’ নিয়ে তোলপাড়  » «   দেশে ফিরলেন সাগরে বেঁচে যাওয়া সিলেটের ১৩ যুবক, বিমানবন্দরে জিজ্ঞাসাবাদ  » «   গোয়ালাবাজার-খাদিমপুর রাস্তার বেহাল দশা, দেখার কেউ নেই !  » «   বালাগঞ্জ-ওসমানীনগর উপজেলা আইনজীবী পরিষদের দোয়া ও ইফতার মাহফিল সম্পন্ন  » «   পবিত্র ঈদুল ফিতর ৫ জুন বুধবার !  » «   ব্রিটেনে মাদক বিরোধী অভিযান, এক সপ্তাহে ৫৮৬জন গ্রেফতার  » «   কমলগঞ্জে বন্ধনের দরিদ্র রোজাদারদের মাঝে ২ টাকায় ইফতার  » «  

এসএ গেমসের লোগো উন্মোচন, জানে না বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্ক :
বারবার জল ঘোলা করেই চলেছে দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা এসএ গেমসের ত্রয়োদশ আসরের আয়োজক নেপাল। শিডিউল অনুযায়ী দেশটি গেমস আয়োজনও করতে পারছে না। আবার সাউথ এশিয়ান দেশগুলোর সঙ্গে ঠিকমতো যোগাযোগও রাখছে না।

এই যেমন দুই দিন আগে হুট করেই তারা গেমসের লোগো ও মাসকট উম্মোচন করেছে। কিন্তু সেটা চুপিসারেই। কোনো সদস্য দেশকে জানানোর প্রয়োজন মনে করেনি নেপাল অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন।

সর্বশেষ গেমস হয়েছে ২০১৬ সালে ভারতের শিলং ও গুয়াহাটিতে। দুই বছর পর এ গেমস নেপালে হওয়ার কথা ছিল ২০১৮ সালে। নেপাল পারেনি গত বছর আয়োজন করতে। পিছিয়ে তারা তারিখ নির্ধারণ করেছিল এ বছরের ৯ থেকে ১৮ মার্চ। তাও পারেনি। ১ থেকে ১০ ডিসেম্বর নতুন তারিখ নির্ধারণ করে গেমসের লোগো ও মাসকট উম্মোচন করেছে আয়োজক দেশটি।

অথচ নেপালের সিদ্ধান্তহীনতার কারণে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন ঠিকমতো গেমসের প্রস্তুতিতে নামতে পারছিল না। গেমস না হলে বাংলাদেশ গেমস আয়োজনের পরিকল্পনা নিয়ে রেখেছিল দেশের খেলাধুলার অন্যতম এ অভিভাবক সংস্থাটি।

নেপাল নিজেরা গেমসের তারিখ দিয়ে লোগো ও মাসকট উম্মোচন করেছে। বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা বুধবার জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, নেপাল কিছুই জানায়নি বাংলাদেশকে।

পয়ত্রিশ বছর আগে নেপালের কাঠমান্ডু থেকে যাত্রা করা দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় এসএ গেমস শুরুর দিকে অনেকটা নিয়মিতই ছিল। এখন অনিয়মিত। কখনো ২ বছর পর, কখনো তিন-চার বছর পরও হয়ে আসছে এই গেমস। নেপালের এবারের আয়োজন নিয়ে সময়ক্ষেপনের কারণ তাদের ভেন্যুগুলো অপ্রস্তুুত। ২০১৫ সালে হওয়া ভয়াবহ ভূমিকম্পে দেশটির প্রধান ক্রীড়া স্থাপনা দসরথ স্টেডিয়ামসহ অনেক ভেন্যুই ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল।

লোগো উম্মোচন করে নেপালের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী এবং অলিম্পিক কর্মকর্তারা বলেছেন, আগস্টের মধ্যেই দসরথ স্টেডিয়ামসহ সব ভেন্যু তৈরি হয়ে যাবে। ভেন্যুর কারণে গেমস আর বিলম্বিত হবে না।

এবারের এসএ গেমসে ডিসিপ্লিন ২৭টি। এর মধ্যে বাংলাদেশের অংশ নেয়ার সম্ভাবনা ২৩টিতে। এক আসর বিরতি দিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার এই গেমসে ফিরছে ক্রিকেট।

২০১৬ সালে ভারতের গুয়াহাটি ও শিলংয়ে অনুষ্ঠিত সর্বশেষ এসএ গেমসে বাংলাদেশ ৪ টি স্বর্ণ, ১৫টি রৌপ্য ও ৫৬ টি তাম্র পদক পেয়েছিল। ৪ স্বর্ণের দুটি পেয়েছিলেন সাঁতারু মাহফুজা খাতুন শিলা। বাকি দুটি পেয়েছেন ভারোত্তোলক মাবিয়া আক্তার সীমান্ত ও শ্যুটার শাকিল আহমেদ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!