বুধবার, ২২ মে, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
সিলেটে ইষ্টিকুটুম-মধুবনকে জরিমানা, নিষিদ্ধ মোল্লা লবণ-পচা খেজুর জব্দ  » «   সিলেটে অবৈধ মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড গুড়িয়ে দিয়েছে সিসিক  » «   সিলেটে ফিজায় মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য  » «   জগন্নাথপুরে জিনের ‘গুপ্তধন’ নিয়ে তোলপাড়  » «   দেশে ফিরলেন সাগরে বেঁচে যাওয়া সিলেটের ১৩ যুবক, বিমানবন্দরে জিজ্ঞাসাবাদ  » «   গোয়ালাবাজার-খাদিমপুর রাস্তার বেহাল দশা, দেখার কেউ নেই !  » «   বালাগঞ্জ-ওসমানীনগর উপজেলা আইনজীবী পরিষদের দোয়া ও ইফতার মাহফিল সম্পন্ন  » «   পবিত্র ঈদুল ফিতর ৫ জুন বুধবার !  » «   ব্রিটেনে মাদক বিরোধী অভিযান, এক সপ্তাহে ৫৮৬জন গ্রেফতার  » «   কমলগঞ্জে বন্ধনের দরিদ্র রোজাদারদের মাঝে ২ টাকায় ইফতার  » «  

ইফতারে লন্ডনেও সিলেটিদের পছন্দ খিচুড়ি

নিজস্ব প্রতিবেদক,লন্ডন:
সিলেটের মতো লন্ডনেও প্রবাসীদের ইফতারিতে পছন্দ ভুনা কিংবা পাতলা খিচুড়ি। ইফতারে যত বাহারি পদ থাকুক না কেন ‘নরম খিচুড়ি’ না থাকলে সিলেটবাসীর ইফতারই যেন থেকে যায় অসম্পূর্ণ।  ইফতারে খিচুড়ি সিলেটিদের সবচেয়ে প্রিয়। খেজুর, শরবত, ছোলা-পেঁয়াজুসহ নানা পদের ইফতারি থাকলেও খিচুড়ি থাকবেই। ইফতারিতে এ দুটো পদকেই স্থানীয় ঐতিহ্য বলে ধরে নেওয়া হয়।

সিলেটের মত লন্ডনেও পরিবারের সব সদস্য এক টেবিলে বসে ইফতার করার রেওয়াজ। এই ঐতিহ্যের আরেকটি অংশ হচ্ছে ইফতারে ‘নরম খিচুড়ি’ থাকা।ইফতারে যত বাহারি পদ থাকুক না কেন ‘নরম খিচুড়ি’ না থাকলে সিলেটবাসীর ইফতারই যেন থেকে যায় অসম্পূর্ণ। শত শত বছর ধরে সিলেটের মানুষ এই পদটি দিয়ে তাদের ইফতার করছেন।

সারা দিন রোজা থাকার পর নরম খিচুড়ি দিয়ে ইফতার করা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। রমজানে প্রতিটি ঘরে ইফতার হিসেবে রান্না করা হয় নরম খিচুড়ি। সুগন্ধি চিকন চালের সঙ্গে গাওয়া ঘি, কালিজিরা ও মেথিসহ নানাজাতের মসলা দিয়ে রান্না করা হয় এ খিচুড়ি। অনেকে স্বাদে ভিন্নতা আনার জন্য খিচুড়িতে শাক ও সবজি দিয়ে থাকেন। কেউ কেউ ইফতারে শুধু খিচুড়ি খেয়ে থাকেন। আবার কেউ কেউ খিচুড়ির সঙ্গে মাংস, তারকারি ও ছোলা মিশিয়ে খান।তবে যেভাবেই খাওয়া হোক না কেন ইফতারের সময় সিলেটীদের পাতে নরম খিচুড়ি চাই-ই চাই।

এছাড়াও ব্রিটেনের প্রবাসীরা ইফতারের আয়োজনে সবসময় অন্যান্য দেশীয় খাবারের পাশাপাশি মিষ্টিকে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। পূর্ব লন্ডনে বাঙালি মালিকানাধীন দোকানগুলোতে রয়েছে- কালোজাম, চমচম, রসগোল্লা সন্দেশসহ দেশীয় সব মিষ্টির বাহারি সমাহার।
একজন বিক্রেতারা বলেন, ‘আমাদের এখানে বাংলাদেশের বিখ্যাত সব মিষ্টিসহ দধি, ফিরনি সবই আছে।’ ক্রেতারা বলেন, ‘আমরা যারা বাঙালি মুসলমান, তাদের ইফতারে প্রতিদিন মিষ্টি জাতীয় কিছু থাকলে ভালো হয়।’ দেশীয় মিষ্টি পরিবারের সবার প্রিয়, তাই নির্ভেজাল ও সুস্বাদু মিষ্টি কেনার জন্য অনেকেই আসেন পূর্ব লন্ডনের হোয়াইট চ্যাপেল ও ব্রিকলেনে।
সেখানে আসা কয়েকজন ক্রেতা বলেন, ‘এসব মিষ্টি বাচ্চারা বেশি পছন্দ করে, এখানে আমরা দেশীয় স্বাদের ও নির্ভেজাল মিষ্টি পাই। ইফতারের আয়োজনে মিষ্টি হিসেবে জিলাপিও বেশ জনপ্রিয়, তাই মিষ্টির পাশাপাশি জিলাপির দোকানগুলোতেও ভিড় করেন অনেকেই।
ব্রিটেনে বাঙালি পরিবারগুলোর মাঝে ইফতার সামগ্রীতে মিষ্টির রেওয়াজ থাকায় অন্য সময়ের চেয়ে রমজানে মিষ্টির বিক্রি বেড়ে যায়। ইফতারের তালিকায় ভিন্ন মাত্রা যোগ করে মিষ্টি। পূর্ব লন্ডনে একর পর এক নতুন নতুন মিষ্টির দোকান চালু হওয়ায় বোঝা যায় বাংলাদেশি কমিউনিটিতে মিষ্টি বেশ জনপ্রিয় হয়ে ওঠেছে।
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!