শনিবার, ২৫ মে, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
সিলেটি বিলালের মুখে বর্ণনা: ছোট নৌকায় দ্বিগুণ যাত্রী তুলে ভাসিয়ে দেয় সাগরে  » «   সিলেটের অলস গ্যাস কুপ থেকে গ্যাস উত্তোলনের আবেদন যুবলীগ সভাপতির  » «   গোলাপগঞ্জে বৃদ্ধকে বাস থেকে ‘ধাক্কা দিয়ে ফেলে’ হত্যা করলো হেলপার  » «   ওসমানীনগরে থানা পুলিশের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল সম্পন্ন  » «   লন্ডনের ওভাল ক্রিকেট স্টেডিয়াম থাকবে সিলেটিদের দখলে  » «   রাজনগরে মনু নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধে ভাঙ্গন, বন্যার আশঙ্কা  » «   বালাগঞ্জে আদালতের রায় উপেক্ষা করে জায়গা নিয়ে সংঘর্ষ, আহত-৯  » «   সংস্কারের অভাবে বিশ্বনাথ বাইপাস সড়কের বেহাল অবস্থা : রাস্তা নয় যেন পুকুর  » «   শমশেরনগর-বিমানবন্দর সড়কে ড্রেনেজ ধ্বসে গর্ত, জনদুর্ভোগ চরমে  » «   মৌলভীবাজারে বন্যায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, তলিয়ে গেছে দেড় হাজার একর আউশ ক্ষেত  » «  

এখনই ছাড়ুন এই ৫টি বদ-অভ্যাস

সুরমা নিউজ ডেস্ক:
প্রাত্যহিক জীবনের নানা ব্যস্ততার মধ্যে প্রতিদিন হাজারো কাজ করতে হয়। পরের দিনটিতে আগের দিনের চাইতে বেশি কাজ করা, কিছু কাজ অবশ্যই করা এবং আগের দিনের চাইতে ভালোভাবে করার চিন্তা সবারই থাকে।

কিন্তু চাইলেও অনেক রুটিনমাফিক চলেও সব কাজ ভালোভাবে করা সম্ভব হয় না। কারণ এই বেধে দেওয়া রুটিনের মাঝখানে অনেক অপ্রয়োজনীয় বিষয় চলে আসে, যেগুলো আমরা অভ্যাসবশতই করে থাকি। কিন্তু এগুলো আমাদের গুরুত্বপূর্ণ কাজের সময়কে নষ্ট করে।

এমন ৫টি কাজের অভ্যাস আমাদের এখনই ত্যাগ করা উচিত। অভ্যাসগুলো নিচে তুলে ধরা হলো :

১. অপরিচিত নম্বরের ফোন না ধরা: কাজের সময় অপরিচিত নম্বর থেকে আসা ফোনকল ধরা উচিত নয়। এটি কাজ থেকে আপনার মনোযোগকে বহু দূরে নিয়ে যায়। দ্বিতীয়ত, এটি যদি গুরুত্বপূর্ণও হয়, আপনার আলোচনা ফলপ্রসূ হবে না। কেননা, সেই আলোচনার জন্য আপনার মন প্রস্তুত নয়, কিন্তু অপরপক্ষ পুরোপুরি প্রস্তুতি নিয়েই কলটি করেছে। তাই গুগল ভয়েস বা মেইলের মতো প্রযুক্তি ব্যবহার করুন। এতে আগে বার্তাটি দেখে নিজের প্রস্তুতি অনুযায়ী যোগাযোগ করতে পারবেন।

২. এলোমেলো আলোচনা এড়িয়ে চলুন: কারো সঙ্গে কথা বলার সময় এলোমেলো আলোচনা এড়িয়ে চলুন। এতেও সময় বাঁচে। যেমন : কেউ তার ছুটির দিনের কথা বলতে শুরু করলে খুব বিনীতভাবেই এড়িয়ে চলুন। শুনতে খারাপ লাগলে এটা জরুরি। কারণ, এই ছোট কথাটি না বলতে পারলে আপনার বড় একটা সময় নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

৩. ঘনঘন বার্তা চেক না করা: ফেসবুক মেসেঞ্জার বা মেইলে একটা নির্দিষ্ট সময় পরপর বার্তাগুলো চেক করতে পারেন। আসক্ত হয়ে পড়লে চলবে না। বারবার বার্তা চেক করতে গিয়ে যেমনি জরুরি কাজের সময় নষ্ট হয়, তেমনি অন্য কাজ করার সময়ও মন ব্যস্ত থাকে।

৪. প্রয়োজন অনুযায়ী যোগাযোগ রক্ষা করুন: কোনো একটা কাজের জন্য উপযুক্ত যোগাযোগ দক্ষতা থাকাটাও জরুরি। যার কাছ থেকে কাজটি আদায় করবেন তাকে ঠিক কখন ফোন দেওয়া যায় বা কয়বার ফোন দেওয়া যায় সেটি বুঝতে হবে। না বুঝে বারবার ফোন দিয়ে আপনার কাজের গুরুত্বও কমে যেতে পারে। নিজের উত্তর পাওয়ার ক্ষেত্রেও একই নিয়ম মেনে চলুন।

৫. অতিরিক্ত কাজের চাপে বিভ্রান্ত হয়ে যাবেন না: অতিরিক্ত কাজের চাপে বিভ্রান্ত হয়ে নিজের ক্ষমতার চাইতেও বেশি কাজ করার চেষ্টা করবেন না। কিংবা সব কাজ শেষ করার জন্য অগোছালোভাবে কাজ করতে থাকবেন না। এতে সব কাজ তো শেষ হবেই না, জরুরি কাজগুলোও পড়ে থাকবে। শেষে হতাশায় ভুগবেন।

তাই, মাথা ঠান্ডা করে বসুন। কাজগুলো নিয়ে ভাবুন। কোন কাজগুলো জরুরি, কোনগুলো আগে করবেন। এরপর ধারবাহিকভাবে শেষ করুন। তাহলে অন্তত হতাশায় ভুগবেন না।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!