শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ

আবরারের মৃত্যুতে দ্বিতীয় দিনেও চলছে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

সুরমা নিউজ ডেস্ক:
বাসচাপায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরীর মৃত্যুর ঘটনায় রাজধানীতে টানা দ্বিতীয় দিনের মত রাস্তায় নেমে সড়ক অবরোধ করেছে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (২০ মার্চ) সকাল সাড়ে ৯টা থেকে নদ্দায় বসুন্ধরা গেইটে শিক্ষার্থীদের এই বিক্ষোভ চলছে।

আগের দিন সকালে ঠিক ওই জায়গাতেই বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র আবরার নিহত হন।

বিইউপির শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (এআইইউবি), সিদ্ধেশ্বরী কলেজ এবং নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও এ বিক্ষোভে যোগ দিয়েছে।

‘জাস্টিস ফর আবরার’, ‘আমার ভাইয়ের রক্ত বৃথা যেতে দেব না’, ‘আর কত রক্ত ঝরতে হবে রাস্তায়’- এরকম নানা স্লোগানে সড়কে নিরাপত্তার দাবি জানাচ্ছেন তারা।

শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের ফলে প্রগতি সরণি দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। পুলিশ কালাচাঁদপুর বাসস্ট্যান্ড এবং কুড়িলে যানবাহন ডাইভারশনের ব্যবস্থা করেছে।

নদ্দায় বিক্ষোভস্থলের কাছে এবং কালাচাঁদপুর বাস স্ট্যান্ড থেকে সড়কের দুই পাশে অবস্থান নিয়ে আছে বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য। তবে বেলা সাড়ে ১০টা পর্যন্ত কোনো গোলযোগ সেখানে ঘটেনি।

এদিকে বিইউপির শিক্ষার্থীদের দাবির প্রতি সংহতি জানিয়ে সরকারি বিজ্ঞান কলেজের ছাত্ররাও বুধবার সকালে ঢাকার ব্যস্ততম এলাকা ফার্মগেট মোট অবরোধের চেষ্টা করে।

তবে পুলিশ তাদের বুঝিয়ে সরিয়ে দেওয়ায় সেখানে যানবাহন চলাচল বিঘ্নিত হয়নি বলে তেজগাঁও ট্রাফিক বিভাগের সহকারী কমিশনার হারুন অর রশিদ জানান।

পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঢাকার পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম নদ্দায় দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে একটি ফুটওভার ব্রিজের ভিত্তি স্থাপন করবেন।

মঙ্গলবার সকালে দুর্ঘটনার পরও মেয়র আতিকুল ঘটনাস্থলে গিয়ে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের শান্ত করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু তাতে সাড়া না দিয়ে শিক্ষার্থীরা সন্ধ্যা পর্যন্ত বিক্ষোভ চালায় এবং বুধবার আবার অবস্থান নেওয়ার ঘোষণা দিয়ে রাস্তা ছেড়ে যায়।

ডাকসুর নবনির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুরও মঙ্গলবার নদ্দায় গিয়ে বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেন।

সহপাঠীরা জানান, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার ক্লাস ধরার জন্য আবরার বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে উঠতে বসুন্ধরা গেইটে গিয়েছিলেন। সাড়ে ৭টার দিকে তিনি যখন রাস্তা পার হচ্ছিলেন, সুপ্রভাত পরিবহনের উত্তরাগামী একটি বাস তাকে চাপা দেয়।

শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের প্রেক্ষাপটে সুপ্রভাত পরিবহনের ওই বাসটির নিবন্ধন সাময়িকভাবে বাতিল করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ-বিআরটিএ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!