রবিবার, ২১ এপ্রিল, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কুয়াকাটা দরবার শরিফের দানবাক্স পাহারায় সাপ

সুরমা নিউজ ডেস্ক:
বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কের পাশেই বার আউলিয়ার দরবার শরিফের দানবাক্স পাহারা দিচ্ছে বিষধর সাপ। তবে সব সময় না, হঠাৎ হঠাৎ সাপটি দীর্ঘক্ষণ ধরে দানবাক্সে নিজেকে জড়িয়ে রাখে। এমন দৃশ্য দেখে এলাকার অনেকেই মনে করছেন টাকা চুরি রোধে হয়তো অলৌকিকভাবে সাপটি এমনটি করছে। এর আগে ৩-৪ বার সেখান থেকে টাকা চুরি হওয়ার ধারণা থেকেই এলাকাবাসী এমনটা মনে করছেন। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নে আউলিয়াপুর গ্রামে বার আউলিয়ার দরবার শরিফ।

সোমবার দুপুর ১টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত সাপটি তালাসহ দান বাক্সটি জড়িয়ে থাকে। এসময় কেউ দান বাক্সের দিকে এগিয়ে গেলে ছোবল মারার উদ্দেশে সাপটি ফনা তুলেছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি দেখতে ঘটনাস্থলে ভিড় জমান গ্রামবাসী। মঙ্গলবারও উৎসুক গ্রামবাসী সাপটি দেখতে ভিড় জমান। তবে মঙ্গলবার সাপটিকে আর দেখা যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কের পাশেই বার আউলিয়ার দরবার শরীফ। প্রতিদিন এ পথে যাতায়াতকারীরা ছাড়াও স্থানীয় ও দূর-দূরান্ত থেকে অসংখ্য মানুষ দরবারের দানবাক্সে অর্থ দান করেন। তবে একটি অসাধু চক্র গত ১ বছরে ৩ থেকে ৪ বার দরবারের দানবাক্সের তালার নকল চাবি তৈরি করে অর্থ চুরি করে। মাসখানেক আগে চুরি ঠেকাতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) তালা মেরে তা ঝালাই করে দেন। এরপরও ওই অসাধু চক্রটি অর্থ চুরির ফন্দি করছে। সেই কারণেই হয়তো দানবাক্স পাহারা দিচ্ছে বিষধর সাপটি। স্থানীয়রা বিষয়টি অলৌকিক বলে মন্তব্য করছেন।

দরবার শরীফের জমি ওয়াকফ স্টেটের। ওয়াকফ স্টেটের মোতওয়াল্লির প্রতিনিধি মাও. হেলালুজ্জামান জানান, বাকেরগঞ্জ রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের আউলিয়াপুর গ্রামে ৫৬৩ বসর আগে দিল্লীর তৃতীয় মুঘল সম্রাট আকবরের শাসনামলে এ এলাকায় ১২ জন ওলি আউলিয়া ইসলাম প্রচারের জন্য আসেন। তারা এখানে থেকে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিতে থাকেন। প্রতিবছর ফাল্গুন মাসের শেষ দিকে অর্থাৎ দোল পূর্ণিমায় বার আউলিয়ার দরবার বাৎসরিক ৩দিন ব্যাপী ওরশ মাহফিলে স্থানীয় ভক্তসহ দেশ-বিদেশের বিভিন্নস্থান থেকে আগত অগণিত মুরীদান, আশেকান, ভক্ত দর্শনার্থীদের আগমন ঘটে আসছে।

তিনি জানান, কয়েক বছর ধরে স্থানীয় একটি চক্র দরবার শরীফের দানবাক্সের তালার নকল চাবি তৈরি করে অর্থ চুরি করে আসছে। গত ১ বছরে ৩ থেকে ৪ বার তারা অর্থ চুরি করে। সেই কারণেই হয়তো এমন অলৌকিক ঘটনা ঘটেছে। যাতে ওই অসাধু চক্রটি আর অর্থ চুরির কথা চিন্তাও না করেন।

বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি মো. মাসুদুজ্জামান জানান, ঘটনাটি শুনেছি। সাপটি নাকি বিষধর। তবে মঙ্গলবার আর সাপটিকে দেখা যায়নি। ভীতির কিছু নেই। ওয়াকফ স্টেট হিসেবে ওই দরবার শরীফের যাবতীয় কার্যক্রম তদারকি ও দেখাশুনা করেন উপজেলা প্রশাসন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!