বুধবার, ২২ মে, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
সিলেটে ইষ্টিকুটুম-মধুবনকে জরিমানা, নিষিদ্ধ মোল্লা লবণ-পচা খেজুর জব্দ  » «   সিলেটে অবৈধ মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড গুড়িয়ে দিয়েছে সিসিক  » «   সিলেটে ফিজায় মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য  » «   জগন্নাথপুরে জিনের ‘গুপ্তধন’ নিয়ে তোলপাড়  » «   দেশে ফিরলেন সাগরে বেঁচে যাওয়া সিলেটের ১৩ যুবক, বিমানবন্দরে জিজ্ঞাসাবাদ  » «   গোয়ালাবাজার-খাদিমপুর রাস্তার বেহাল দশা, দেখার কেউ নেই !  » «   বালাগঞ্জ-ওসমানীনগর উপজেলা আইনজীবী পরিষদের দোয়া ও ইফতার মাহফিল সম্পন্ন  » «   পবিত্র ঈদুল ফিতর ৫ জুন বুধবার !  » «   ব্রিটেনে মাদক বিরোধী অভিযান, এক সপ্তাহে ৫৮৬জন গ্রেফতার  » «   কমলগঞ্জে বন্ধনের দরিদ্র রোজাদারদের মাঝে ২ টাকায় ইফতার  » «  

এ কেমন নির্বাচন দেখলো সিলেটবাসী ?

জুবেল আহমেদ:
ভোটার উপস্থিতি একদম নেই বললেও চলে, ভোটার ৫৩৬০ জন: ৫ ঘন্টায় কেউ আসেনি, ভোট পড়েনি একটিও; চার ঘণ্টায়ও শূন্য ভোট, ৫ ঘণ্টায় ২২ ভোট, দুপুর পর্যন্ত দুই কক্ষে ভোট পড়েনি একটিও, ফেঞ্চুগঞ্জে ভোটারের উপস্থিতি খুবই কম, সিলেটে ভোটার নেই : আছে শুধু র‌্যাব পুলিশ আর সাংবাদিক, সিলেটে এ কেমন ভোট, সিলেটের ১৭ লাখ ৮০ হাজার ভোটার কই, সিলেট বিভাগের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যমগুলোতে যখন এমন শিরোনাম আসে তখন আর বলার অপেক্ষা রাখেনা যে এই নির্বাচনে কেমন অংশগ্রহণ করেছেন ভোটাররা। উপরোক্ত শিরোনাম গুলো গতকাল দ্বিতীয় ধাপে সিলেটের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট চলাকালীন সময়ের চিত্র। অনেকেই বলছেন এ কেমন নির্বাচন দেখলো সিলেটবাসী। কিন্তু দিন দিন ভোটাধিকার প্রয়োগে এমন অনীহা প্রকাশ করছেন কেন তা হয়তো ভেবে দেখছেন না কেউই।

নির্বাচন! যেন গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষায় একটি রুটিন কর্মসূচি। জনগণ ব্যালট বিপ্লবের মাধ্যমে তাদের যোগ্য নেতা নির্বাচিত করবেন, এটাই নিয়ম হলেও গণতন্ত্র এখন প্রায় হুমকির মুখে। কেননা যেখানে ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে ভোটাররা তাদের যোগ্য প্রার্থী নির্বাচিত করবেন, সেখানে যদি ভোটাররা ভোট প্রয়োগে অনীহা প্রকাশ করে ভোট কেন্দ্রে না যান তাহলে বাংলাদেশের গণতন্ত্র আজ কোথায় গিয়ে পৌছেছে এমন প্রশ্ন থেকেই যায়। আদৌ কি দেশের ভোটাররা এমন নির্বাচন চান? তাও একটি প্রশ্ন। হয়তো হেভিওয়েট প্রার্থী এবং তাঁর সমর্থকরা এমন নির্বাচনকেই সমর্থন করেন।

বাংলাদেশে অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচনের কোনো বিকল্প নেই। তারপরও কেন বাংলাদেশের নির্বাচন বারবার প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে এমন প্রশ্ন যেন সবার মুখে মুখে। এ কারণে এখন গণতন্ত্র নিয়ে শঙ্কায় এ দেশের জনগণ। তাই প্রতিনিয়ত বাংলাদেশ থেকে ভোট উৎসবের আমেজটা প্রায় বিলীন হয়ে যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, যদি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কথা বলি, তাহলে দেখা যায় সারাদিন দেশের মোটামোটি সবগুলো কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কম থাকলেও ফলাফল ঘোষনার পর প্রায় আহাম্মক হয়ে গেছেন দেশের জনগণ। নির্বাচনের এমন ফলাফল এসেছে যা অকল্পনীয়। এতো ভোট আসলো কোথায় থেকে? এমন প্রশ্ন ছিলো সবার মুখে। তাছাড়া ভোট কারচুপি, ব্যালট ছিনতাই, জাল ভোট, টেবিল কাস্ট, ভোট কেন্দ্রে গিয়ে দেখেন নিজের ভোট দেওয়া হয়ে গেছে, ভোট কেন্দ্রে সংঘর্ষ ইত্যাদি এমন সবগুলো বিষয়ের উপর চিন্তা করে জনগণ এখন ভোটাধিকার প্রয়োগ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

বালাগঞ্জ উপজেলার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ভোটার ভোট দিয়েছিলেন কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, ভোট দিয়ে কি হবে। বর্তমান সময়ে কে জনপ্রতিনিধি হয়ে আসবেন তা আগেই নির্ধারণ করা থাকে, ভোটতো শুধু নিয়ম রক্ষার।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেকজন ভোটার বলেন, শুধু শুধু রিস্ক নিয়ে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে লাভ কি? আমি গেলেও আমার ভোট পড়বে, না গেলেও আমার ভোট দেওয়া হবে। ভোট কেন্দ্রে যাওয়াটা রিস্ক কেন? -এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিহত সায়েম সুহেল’ই তাঁর প্রমাণ।

মানুষের এভাবে কেউ ভোট বর্জন করাকে অনেকে ভালো চোখে দেখছেন না । এমন পরিস্থিতিতে আগামী নির্বাচনগুলোতে নির্বাচন কমিশন একটি সুন্দর, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে দেশের ভাবমূর্তী এবং সাধারণ ভোটারদের ভোট প্রয়োগে আগ্রহী করবেন এমনটাও আশা করছেন অনেকেই।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!