বুধবার, ২২ মে, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
রাজনগরে নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের দায়িত্ব গ্রহণ  » «   সহীহ-শুদ্ধ কুরআন শিক্ষা দিচ্ছে দারুল কিরাত মজিদিয়া ফুলতলী ট্রাস্ট  » «   সরকারি কর্মকর্তাদের কী বলে ডাকবেন জানতে চেয়ে আবেদন  » «   মৌলভীবাজারে সংস্কারের দাবিতে সড়কে ধান রোপণ করে প্রতিবাদ  » «   ব্রিটেনে স্টুডেন্ট ভিসায় পড়তে যাওয়া ৩৪ হাজার শিক্ষার্থীর জীবন বিপন্ন  » «   সিলেটে ইষ্টিকুটুম-মধুবনকে জরিমানা, নিষিদ্ধ মোল্লা লবণ-পচা খেজুর জব্দ  » «   সিলেটে অবৈধ মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড গুড়িয়ে দিয়েছে সিসিক  » «   সিলেটে ফিজায় মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য  » «   জগন্নাথপুরে জিনের ‘গুপ্তধন’ নিয়ে তোলপাড়  » «   দেশে ফিরলেন সাগরে বেঁচে যাওয়া সিলেটের ১৩ যুবক, বিমানবন্দরে জিজ্ঞাসাবাদ  » «  

আরব আমিরাতের ভিসা : না জেনে দালালের পাল্লায় পড়বেন না

সুরমা নিউজ ডেস্ক :
আমাদের দেশের কিছু সাংবাদিকদের সাংবাদিকতা দেখলে মাঝে মাঝে অবাক হই, কোনদিন জানি পুরো বাংলাদেশকেই নাই করে দেয়। এই কাজে একধাপ এগিয়ে আছে অনলাইন নামক ভাইরাস পত্রিকা, যা মুহুর্তে ছড়িয়ে যায়।দু:খজনক হলেও সত্য এদের ফলোয়ার দেশের নামকরা নিউজ পেপার থেকে অনেক বেশি। মোরল নিউজ, অন্ধকার খবর, এখনই খবর, দ্রুত খবর আরও কি সব সাংঘাতিক নাম!
এদের নিউজ করার স্টাইলটা হচ্ছে এমন-

ধরুন, আপনি যদি বলেন আপনার সন্তান হবে তারা যেন আপনার সন্তান হলে একটা নিউজ পাবলিশ করে।আপনার বউ হাসপাতালে যাওয়ার আগেই তারা নিউজের হেডলাইন করবে অমুকের ৩ বছরের তিনটা বাচ্চা হয়েছে। আপনি মাথায় হাত দিয়ে বলবেন, হায়রে আমার সন্তান তো এখনো দুনিয়াই দেখলো না, আর এরা তো আমারে তিন বছরের তিনটা বাচ্চার বাপ বানাইয়া ছাড়লো, কি সাংঘাতিক!

বাংলাদেশের জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাতের (দুবাই) ভিসা উন্মুক্ত হয়েছে। তারপর গত তিনদিন থেকে এই নিউজ কয়েক হাজার বার আমাদের দেশের নিউজ পেপারগুলো পাবলিশ করেছে।কিন্তু সেখানে কি ধরণের চুক্তি হয়েছে, তা উল্লেখ না করে শুধু বাংলাদেশীদের জন্য আমিরাতের ভিসা উন্মুক্ত এই নিউজই প্রচার করে যাচ্ছে।সত্য-মিথ্যা যাচাই না করে সবাই তা শেয়ার করে যাচ্ছে।গত দুইদিন থেকে ফেসবুকে শুধু এই নিউজ দেখে মাথা খারাপ অবস্থা। অনেকেই ইনবক্সে মেসেজ দিচ্ছে, আবার কেউ কেউ নিউজ এর লিংক দিচ্ছে- এর সত্যতা জানতে চাচ্ছেন ইত্যাদি ইত্যাদি!!

আসুন সবকিছু পরিষ্কার করে বুঝিয়ে দেই-
বলা হচ্ছে, বাংলাদেশ থেকে ১৯ ক্যাটেগরীতে লোক নেবে। এখন এই ১৯ ক্যাটেগরীতে কারা আছেন:

১. গৃহ পরিচালিকা।
২. ব্যক্তিগত নাবিক।
৩. বাড়ির নিরাপত্তা কর্মী।
৪. ঘরের মেষপালক।
৫. পারাবারিক গাড়ির ড্রাইভার।
৬. গাড়ির পার্কিং পরিষ্কার কর্মী।
৭. গৃহপালিত ঘোড়ার রক্ষক।
৮. গৃহপালিত বাজপাখির রক্ষক।
৯. ঘরের ভেতরের কর্মী।
১০. বাড়ির কেয়ারটেকার কর্মী।
১১. ব্যক্তিগত প্রশিক্ষক।
১২. ব্যক্তিগত শিক্ষক।
১৩. বাচ্চাদের সেবক।
১৪. বাড়ির অভ্যন্তরীণ কৃষক।
১৫. বাড়ির মালি।
১৬. ব্যক্তিগত নার্স।
১৭. ব্যক্তিগত পিআরও।
১৮. ব্যক্তিগত কৃষি-ফার্মের প্রকৌশলী।
১৯. ঘরের বাবুর্চি

জেনে রাখুন, একজন লোকাল আরাবিক চাইলে যে কোন সময় তালিকায় দেয়া কর্মী নিয়োগ দিয়ে পারেন।ভিসা বন্ধ থাকাকালীনও অনেক লোক এই ক্যাটেগরীতে ট্রান্সফার হয়েছেন এবং এখনো হতে পারবেন।
উপরে উল্লেখিত তালিকায় ১৭ ক্যাটেগরীর ভিসা আগে থেকেই খোলা ছিল। এখানে দুটো ক্যাটেগরী যোগ করা হয়েছে। নতুন করে করা এই সমঝোতা স্মারকের মাধ্যমে শুধুমাত্র তারা কি কি সুযোগ সুবিধা পাবেন তার একটা চুক্তি হলো মাত্র। বলে রাখি ভিসা সংক্রান্ত যে সমঝোতা স্বাক্ষরিত হয়েছে তাতে ভিসা চালুর ব্যাপারে উক্ত সমঝোতা শতভাগ নিশ্চয়তা নয়। কারণ, সমঝোতা স্মারক আইনগতভাবে বাধ্যতামূলক নয়। তবে উক্ত সমঝোতা স্বাক্ষরকে আমরা ভিসা খোলার প্রথম ধাপ হিসেবে নিতে পারি।
নতুন এই সমঝোতায় কোনভাবেই উল্লেখ করা হয়নি যে, যারা প্রফেশনাল ভিসা বা কোম্পানীতে বিভিন্ন কাজে কর্মরত আছেন তারা অভ্যন্তরীন ভিসা পরিবর্তন অথবা নতুন ভিসায় আসতে পারবেন।
সুতরাং সব বুঝেশুনে তরপর কাজ করুন। ভিসা খুলেছে শুনেই দালালদের দৌরাত্ম্য বেড়ে যায়। তারা এইসব নিউজের সন্ধানে থাকে। সাধারণ মানুষকে বোকা বানিয়ে ভিসা খুলেছে বলে টাকা হাতিয়ে নেয়। আর মানুষ সত্য-মিথ্যা যাচাই না করে এদের পাল্লায় পড়ে। তারপর দালালের পিছে পিছে ঘুরে আর কান্নাকাটি করে! একটু সচেতন হোন, দালালদের খপ্পরে পড়বেন না- জেনে বুঝে কাজ করুন। সব ধরণের ভিসা খুললে সবাই জানতে পারবেন। প্রয়োজনে আপনার পরিচিত আপন কাছের মানুষ যারা এদেশে থাকে, তাদের সাথে যোগাযোগ করুন। কাউকে টাকা দিয়ে প্রতারিত হবেন না।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!