মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক খানের নামে সিলেটে রাস্তা নামকরণের দাবি প্রবাসীদের  » «   মেয়েকে বলেছি তোমার মা আল্লাহর কাছে, আমিই এখন তোমার মা এবং বাবা  » «   সিলেটে ধর্ষণ ও সন্তানদেরকে গুম করে ফেলার হুমকি ছাত্রলীগ নেতার  » «   ১৪দিনেও উদ্ধার হয়নি ব্রিটিশ কন্যার স্বামী, মামলা নিচ্ছে না পুলিশ  » «   যুক্তরাজ্যে দয়ামীর ইউনিয়ন এডুকেশন ফোরাম ইউকের আত্মপ্রকাশ  » «   সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা, আটক ৪  » «   সিলেটসহ সাত জেলায় সেনা কর্মকর্তার স্ত্রী-সন্তানসহ ১০ জনের মৃত্যু  » «   সিলেটে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত যারা  » «   নৌকার প্রার্থী আতাউরের বাড়িতে বিদ্রোহী প্রার্থী বিজয়ী পল্লব!  » «   হবিগঞ্জে প্রেমিকের সাথে অভিমান করে কলেজছাত্রীর আত্মহত্যা  » «  

ইউএনও’র উদ্যোগে অত্যাধুনিক ‘গার্লস ফ্যাসিলিটিজ’ কক্ষ

আনোয়ার হোসেন আনাঃ

সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আনিছুর রহমানের এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ অত্যাধুনিক ‘গার্লস ফ্যাসিলিটিজ’ কক্ষ। ছাত্রীরা যাতে বিদ্যালয়ে এসে স্বাচ্ছন্দবোধে  পাঠদান চালিয়ে যেতে পারে এজন্য এই উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি। তার এই এই উদ্যোগ  বাস্তবায়ন করেছেন উপজেলার দয়ামীর সদরুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ে। শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের একটি ভবনের দ্বিতীয় তলার একটি কক্ষে আসবাবপত্রসহ নানা প্রয়োজনীয় উন্নত জিনিসপত্র দিয়ে সাজিয়ে নাম দিয়েছেন ‘গার্লস ফ্যাসিলিটিজ’ রুম। যে কারো দৃষ্টি কারবে এই কক্ষটি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ব্যতিক্রর্মী এই উদ্যোগ বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ এলাকায় প্রশংসা কুড়াচ্ছে। পর্যায়ক্রমে এলাকার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এই উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা হবে বলে  জানিয়েছেন উদ্যোক্তা।

জানা যায়, সম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার উদ্যোগে দয়ামীর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সহযোগিতায় এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় প্রায় ৭লাখ টাকা ব্যয়ে সদরুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ে ‘গার্লস ফ্যাসিলিটিজ’ কক্ষ স্থাপন করা হয়। ‘গার্লস ফ্যাসিলিটিজ রুম’ নামের  ৪১০ বর্গফুটের কক্ষে বিভিন্ন আসবাবপত্র দিয়ে সুসজ্জিত করে তুলা হয়েছে। যার সুবিধা ভোগ করছে বিদ্যালয়ের প্রায় ৭শ’ ছাত্রী। ছাত্রীদের জন্য এমন সুসজ্জিত ও সুবিধা সমৃদ্ধ কক্ষ বাংলাদেশে আর কোন সরকারি বা এমপিওভূক্ত বিদ্যালয়ে নেই বলে জানা গেছে। গত ১৯ ফেব্রæয়ারি এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেনে সিলেটের জেলা প্রশাসক ।   সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,  দৃষ্টি নন্দিত ‘গার্লস ফ্যাসিলিটিজ’ কক্ষটির মেঝে ব্যবহার করা হয়েছে উন্নত টাইলস।  ছাদের সিলিংয়ে করা হয়েছে উন্নত কারুকাজ। দেয়ালে সাটানো রয়েছে বিভিন্ন মনীষির ছবি। রুমের একপাশে রয়েছে পড়ার চেয়ার-টেবিল এবং অন্যপাশে বসার জন্য উন্নত মানের সোফা। দেয়াল ঘেষে রয়েছে একটি ক্যাবিনেট যেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা সরঞ্জাম রাখা। রুমের ভেতরে রয়েছে একটি সুসজ্জিত ওয়াশরুম এবং এর পাশে রয়েছে হাত-মুখ পরিস্কারের জন্য উন্নতমানের একটি পানির ট্যাপ ও বেসিন। এর পাশেই রয়েছে ড্রেস পরিবর্তনের কক্ষ, যেখানে অসুস্থতাজনিত কারণে ছাত্রীদের বিশ্রামের জন্য একটি খাটও রাখা রয়েছে। ছাত্রীদের মিনসকালীন সময়ে ব্যবহার করার জন্য ন্যাপকিন প্যাডও রাখা হয়েছে। সব মিলিয়ে কক্ষের ভেতরে মনোরম পরিবেশ বিরাজ করছে। কক্ষটিতে একটি এয়ারকন্ডিশন স্থাপনের প্রক্রীয়াও চলছে।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফারজানা বেগম, ও হাবিবা বেগম বলে,  আমাদের ফ্যাসিলিটির জন্য নির্মিত কক্ষটি খুব সুন্দর। কক্ষটি ব্যবহার করে আমরা খুবই আনন্দ বোধ করছি।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ দুলাল মিয়া বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার উদ্যোগে ছাত্রীদের জন্য এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হয়েছে। ছাত্রীরা বিদ্যালয়ে এসে এই কক্ষটি ব্যবহার করে অনেক সুবিধা ভোগ করতে পারছে।  এধরণের মহতি উদ্যোগের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

উদ্যোক্তা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আনিছুর রহমান বলেন,  আমাদের মেয়েরা  বিদ্যালয়ের গিয়ে যেন  সাচ্ছন্দবোধ করতে পারে সেই চিন্তা মাথায় রেখে এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমার জানামতে বাংলাদেশের আর কোন বিদ্যালয়ে এমন ব্যবস্থা নেই। জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতা নিয়ে পর্যায়ক্রমে উপজেলা প্রতিটি বিদ্যালয়ে এই প্রকল্প বাস্তবায়নের ইচ্ছা রয়েছে।

সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম বলেন, এটি খুব ভাল উদ্যোগ। পর্যায়ক্রমে সিলেটের প্রতিটি বিদ্যালয়ে ছাত্রীদের সুবিাধার জন্য এধরণের উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা হবে।

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!