বুধবার, ২০ মার্চ, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
মৌলভীবাজারে গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে জাতীয় ফল কাঠাঁল  » «   মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক খানের নামে সিলেটে রাস্তা নামকরণের দাবি প্রবাসীদের  » «   মেয়েকে বলেছি তোমার মা আল্লাহর কাছে, আমিই এখন তোমার মা এবং বাবা  » «   সিলেটে ধর্ষণ ও সন্তানদেরকে গুম করে ফেলার হুমকি ছাত্রলীগ নেতার  » «   ১৪দিনেও উদ্ধার হয়নি ব্রিটিশ কন্যার স্বামী, মামলা নিচ্ছে না পুলিশ  » «   যুক্তরাজ্যে দয়ামীর ইউনিয়ন এডুকেশন ফোরাম ইউকের আত্মপ্রকাশ  » «   সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা, আটক ৪  » «   সিলেটসহ সাত জেলায় সেনা কর্মকর্তার স্ত্রী-সন্তানসহ ১০ জনের মৃত্যু  » «   সিলেটে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত যারা  » «   নৌকার প্রার্থী আতাউরের বাড়িতে বিদ্রোহী প্রার্থী বিজয়ী পল্লব!  » «  

মিঠামইনের কাটখালে খেলার মাঠের দাবিতে মানববন্ধন

সুরমা নিউজ :
কিশোরগঞ্জের মিঠামইন উপজেলার কাটখালে স্থায়ী খেলার মাঠের জন্য মানববন্ধন করেছেন কাটখালের সর্বস্তরের ক্রীড়াপ্রেমীরা। মঙ্গলবার (৬ নভেম্বর) সকাল ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত কাটখাল বাজারে “কাটখালে স্থায়ী খেলার মাঠ চাই” শিরোনামে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সাইফুর রহমান, মোঃ উজ্জ্বল আহমেদ, বিজয় আহমেদ হৃদয়, মোঃ বিল্লাল হোসাইন, কাউসার আহমেদ।

মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা বলেন, মিঠামইন উপজেলা সদর পরেই কাটখাল ইউনিয়নের অবস্থান। খেলাধুলায় আমরা অনেকটাই এগিয়ে অন্যান্য ইউনিয়ন থেকে। তবে আজ দুঃখের বিষয় অনেক সম্ভাবনাময়ী খেলোয়াড় থাকলে আমাদের এখানে মাঠ না থাকায় তারা সামনে এগুতে পারছেনা। আশাকরি সবাই আমাদের পাশে এসে দাড়াবেন। আমাদের একটা খেলার মাঠ দরকার। আপনার জানেন খেলাধুলা একজন মানুষকে সুস্থ জীবন দান করে। ধন্যবাদ জানাই কাটখাল ইউনিয়ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রসংসদ, কাটখাল ইউনিয়ন সোনার তরী যুব সংঘ এবং কাটখাল ইউনিয়ন নতুনসূর্য যুব সংঘ, কাটখাল ফুটবল একাদশ ও অন্যান্য সংগঠনকে। যারা আমাদের সাথে সহমত পোষন করেছেন।

তারা আরও জানান, এজন্যে তারা গণস্বাক্ষর সংগ্রহ কর্মসূচি গ্রহণ করবেন। পরবর্তিতে মিঠামইন উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর স্থায়ী মাঠ চেয়ে আবেদন করবেন। স্থায়ী মাঠ না পাওয়া পর্যন্ত এ আন্দোলন চলমান থাকবে বলেও তারা জানান।

উল্লেখ্য, বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্থায়ী খেলার মাঠের দাবীতে সোচ্চার ছিল কাটখালবাসী।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!