শনিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ

বাংলাদেশ পুলিশের সততা যোগ্যতা দক্ষতা এবং কিছু কথা

সারওয়ার চৌধুরী:

বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে যোগদানের শারিরিক যোগ্যতা হচ্ছে বুকের মাপ স্বাভাবিক অবস্হায় ৩১ইঞ্চি,সম্প্রসারিত অবস্হায় ৩৩ইঞ্চি ৷ উচ্চতা ৫ফুট ৬ইঞ্চি(পুরুষ) ৫ফুট ২ইঞ্চি(মহিলা) ৷ লিখিত,মনস্তাত্বিক এবং মৌখিক পরীক্ষায় পাশ মার্কস ৪৫% ৷

আমরা যারা আমেরিকার নিউ ইয়র্কে আছি, বিশেষ করে পুলিশ ডিপার্টমেন্টে (NYPD) তে ,আমরা জানি পুলিশ অফিসার, স্কুল সেফটি, ট্রাফিক,কিংবা কারেকশন অফিসার , কোর্ট অফিসার অর্থাৎ বিভিন্ন ল ইনফোর্সমেন্ট এজেন্সীতে প্রচুর বিভিন্ন দেশ থেকে আসা ইমিগ্রান্ট মানুষ অত্যন্ত সুনাম, সাহস, দক্ষতা, নিয়মানুবর্তিতা, এবং সততার উজ্জ্বল দৃস্টান্ত হিসেবে কর্মরত আছেন ৷ এদের প্রায় ৯৫ ভাগেরই জন্ম এবং বেড়ে উঠা আমেরিকার বাইরে ৷ তারপরও কিভাবে আমেরিকায় জন্ম নেওয়া, শিক্ষা-দীক্ষায় বেড়ে উঠা প্রজন্মের সাথে পাল্লা দিয়ে প্রচুর ইমিগ্রান্ট মানুষের পুলিশ ডিপার্টমেন্টে সুযোগ হয় ? প্রথমত: নিরপেক্ষতা, দ্বিতীয়ত: বেকগ্রাউন্ড রেকর্ড ৷

আমেরিকার যে কোন স্হানে, যেকোন পুলিশ ডিপার্টমেন্টে যখন কেউ প্রাথমিক লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয় তাদেরকে সাথে সাথে ডাকা হয়না ৷ কমপক্ষে একবছর, ক্ষেত্র বিশেষ আরও বেশী ৷ ঐ সময়টাতে চেক করা হয় বেকগ্রাউন্ড রেকর্ড , আর এখানেই আমেরিকার বুকে জন্ম নেওয়া এবং বেড়ে উঠা প্রজন্ম লিখিত পরীক্ষায় অনেক ভাল স্কোর করেও বাদ পরে যায় ৷ পেছনে যদি সামান্যতম ক্রাইমের সাথে সংশ্লিষ্টতার রেকর্ড থাকে, তবেই শেষ ৷ এখানে কোন পক্ষপাতিত্ব নেই , নেই কোন সহানুভুতি, সহমর্মিতা—এমনকি অনেকেই বাদ পরে নিজের কর্মকান্ডের জন্যে নয় বরং পরিবারের কেউ যদি কোন অপরাধ করে সেটার রাশ ধরে ! বিশ্লেষণ করে দেখা হয় প্রার্থীদের বিভিন্ন ব্যক্তিগত ঋণ সমুহ, নিশ্চিত করা হয় যাতে প্রদত্ত বেতনে মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণ করে চলতে পারে ৷ তারপর যখন নিয়োগের জন্যে ডাক আসে সেখানেও বেশ কয়েকটা লিখিত শারিরিক এবং মনস্তাত্বিক পরীক্ষা দিতে হয় এবং সব লিখিত পরীক্ষাগুলোতেই কমপক্ষে ৭০% এবং শারিরিক ও মনস্তাত্বিক পরীক্ষায় পুরোপুরি  শতভাগ সফল হতে হয় ৷ শারিরিক ও মানসিক পরীক্ষায় যদি পাশ স্কোর ৪৫% হয় তার মানে ঐ ব্যক্তির শারিরিক ও মানসিক অবস্হা স্বাভাবিকের নিচে ৷ অথচ এই স্কোর হচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশের শারিরিক এবং মনস্তাত্বিক পরীক্ষার পাশ স্কোর ৷ উচ্চতা বুকের মাপ কিংবা ওজন কোন যোগ্যতার মাপকাঠি হতে পারেনা , পৃথিবীর উন্নত দেশগুলির পুলিশ বাহিনীর দিকে দৃষ্টিপাত করলে সেটার প্রমাণ পাওয়া যাবে , যেখানে অসংখ্য খাটো এবং হালকা পাতলা গঠনের অফিসারদের সাফল্যের জয় জয়কার দেখা যায় ….সুতরাং এটা প্রমাণিত হয় যে শারিরিক গঠন কিংবা উচ্চতা,শক্তি সামর্থের প্রকাশ নয় ৷

বাংলাদেশের সাথে আমেরিকা কিংবা অন্য কোন উন্নত দেশের তুলনা অনেকের কাছে হয়তো অবান্তর মনে হতে পারে ৷ এটা তুলনা নয় বরং জানার জন্যে বলা,অনুসরন করার জন্যে বলা ৷ প্রয়োজনে ইউরোপ আমেরিকার পুলিশ ডিপার্টমেন্টের সাথে যোগাযোগ করে কিছু পুলিশ সদস্যকে উন্নত প্রশিক্ষনের জন্যে পাঠানো যেতে পারে—– যারা দেশে ফিরে অন্যদেরকে প্রশিক্ষিত করবে ! তবে সেই প্রশিক্ষন যেন প্রমোদ ভ্রমণে পরিণত না হয় এবং সেই পুলিশ সদস্যরাও যেন উন্নত দেশে বসবাসের লোভ লালসার উর্ধে থাকে , এই বিষয়গুলি নিশ্চিত করতে হবে ৷

পুলিশকে নিয়ে এখন গুরুত্ব সহকারে ভাববার সময় ! আমাদের দেশের পুলিশের উপর মানুষ কেন এত বিরক্ত,বীতশ্রদ্ধ ? যেখানে অন্যদেশে পুলিশকে মানুষ নিরাপদ আশ্রয় মনেকরে ৷ তবে আমাদের দেশের পুলিশের বেলায় যেভাবে কিছু কিছু ইতিবাচক উদাহরণ আছে সেভাবে ঐ সমস্ত দেশের পুলিশের ক্ষেত্রেও হয়তো দু চারটা বিচ্ছিন্ন অভিযোগ থাকতে পারে , সেটা অস্বাভাবিক কিছু নয় ৷

পুলিশদের আর্থিক বিষয়গুলি গুরুত্ব সহকারে বিবেচনায় আনতে হবে,আট ঘন্টার উপরে তারা যদি স্বইচ্ছায়, নিজের প্রয়োজনে কাজ করতে না চায় তবে বাধ্য করা উচিত হবেনা ! মুলকাজের পাশাপাশি কোন পুলিশ সদস্য যদি অন্যকিছু করতে চায় তবে অনুমতি এবং শর্ত সাপেক্ষ সুযোগ করে দিতে হবে ৷ এখানে NYPD তে আমরা দেখি, কোন সদস্য যদি অন্যকোন কাজ করতে চায় তবে অনুমতি ও শর্ত সাপেক্ষ সুযোগ দেয়া হয় দ্বিতীয় কাজের….. আর বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই পুলিশ ডিপার্টমেন্টের লোকদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয় এই জন্যে যে, এরা পুলিশ ডিপার্টমেন্ট কর্তৃক পরীক্ষিত, তাদের মাধ্যমে কোন অনিয়ম কিংবা অপ্রীতিকর পরিস্হিতি হবেনা; পুলিশের এ বিষয়গুলি সবাই নিশ্চিত থাকে—-কত বড় প্রাপ্তি ! সাধারন মানুষের বিশ্বাস, নির্ভরতা, এর থেকে বড় প্রাপ্তি আর কি হতে পারে ?

পুলিশ সদস্যদের নিরাপত্তাকে সর্বাগ্রে আনতে হবে, চাকুরী কালীন সময়ে যদি কোন অঙ্গহানী ঘটে,শারিরিক অথবা মানসিক ক্ষতি হয় , প্রাণহানী ঘটে সে জন্যে নিয়োগের সময় চুক্তি থাকতে হবে এবং চুক্তি অনুযায়ী ব্যক্তি অথবা তার পরিবারকে চুক্তির সুবিধা সমুহ সুনিশ্চিত করতে হবে! এখানে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী তথা কারও ব্যক্তিগত তহবিল থেকে তাদেরকে অনুকম্পা প্রদর্শন লজ্জাজনক…. এটা কোন অনুকম্পা হতে পারেনা বরং তাদের ন্যায্য পাওনা, অধিকার ৷

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!