শুক্রবার, ১৭ আগষ্ট, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
সিলেটে ওয়ার্কার্স পার্টির সন্ত্রাস বিরোধী দিবস পালিত  » «   পল্লীবন্ধু এরশাদ দেশের মানুষের আশা-আকাঙ্খার প্রতীক : ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া এমপি  » «   বিয়ানীবাজার থানা থেকে ১৮ সাপ ধরলো সাপুড়ে  » «   কাল ঐতিহাসিক নানকার কৃষক বিদ্রোহ দিবস  » «   সরকার স্বল্প সময়ে তৃণমূল পর্যায়ে প্রযুক্তি সেবা পৌঁছে দিয়েছে : মিলাদ গাজী  » «   ইলিয়াস গুমের ৭৬ মাস, ফিরে পেতে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল  » «   ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে শ্যামলী পরিবহণ ও ট্রাকের সংঘর্ষে আহত ১০  » «   নবীগঞ্জে ডাকাতিকালে ৫ ডাকাত আটক, বাড়ীর গৃহকর্তাকে কুপিয়ে জখম  » «   জুড়ীতে ১শ’ টাকার আশায় প্রাণ গেল মাদ্রাসা ছাত্রের  » «   শাবিতে ভর্তির আবেদন শুরু ২ সেপ্টেম্বর  » «  

বিশ্বকাপ থেকে উপার্জিত সব অর্থ দান করে দিলেন এমবাপে

স্পোর্টস ডেস্ক:

আগেই ঘোষণা দিয়েছিলেন, বিশ্বকাপ থেকে উপার্জিত অর্থ চ্যারিটি ফান্ডে দান করে দেবেন ১৯ বছর বয়সী বিস্ময় বালক, ফরাসি ফুটবলার কাইলিয়ান এমবাপে। কথা রেখেছেন তিনি। ফ্রান্স ফুটবলার বিশ্বকাপ থেকে তার উপার্জিত অর্থের ৫ লাখ ডলার- পুরোটাই দান করে দিয়েছেন চ্যারিটি ফ্রান্ডে।

রাশিয়ায় তিনি বিশ্বকাপ খেলতে গিয়েছিলেন একরাশ সম্ভাবনা নিয়ে। তরুণ উদীয়মান তারকা হিসেবে এমবাপে কেমন মাঠ কাঁপান সেটাই ছিল দেখার অপেক্ষায়। যেমন সম্ভাবনা নিয়ে গেলেন, দিলেন তার চেয়ে অনেক বেশি। অন্তত দুটি রেকর্ডে তিনি নাম লেখালেন পেলের সঙ্গে। হলেন টুর্নামেন্ট সেরা উদীয়মান ফুটবলার। মাত্র ১৯ বছর বয়সে খেলতে এসে করেছেন ৪ গোল। যার মধ্যে একটি ফাইনালে এবং জোড়া গোল রয়েছে মেসির আর্জেন্টিনার বিপক্ষে।

‘স্পোর্টস ইলাসট্রেটেড’ জানিয়েছে রাশিয়া বিশ্বকাপে ম্যাচ প্রতি ২২৫০০ ডলার করে পেয়েছেন এমবাপে। বিশ্বকাপে সাতটি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। এছাড়া বিশ্বকাপজয়ী ফ্রান্স দলের সদস্য হিসেবে বোনাস পেয়েছেন আরও ৩৫৫,০০০ ডলার। সেই হিসেবে এমবাপের মোট প্রাপ্তি দাঁড়ায় ৫০০০০০ ডলার।

ফ্রান্সের এল ইকুইপে জানাচ্ছে, এই অর্থের পুরোটাই তিনি দান করেছেন এক চ্যারিটি সংস্থাকে। সেই সংস্থার নাম প্রিমিয়ার ডি করডি। সংস্থাটির কাজ হচ্ছে, প্রতিবন্ধী শিশু ও হাসপাতালে ভর্তি শিশুদের নিয়ে কাজ করা। ২০১৭ সাল থেকেই এই চ্যারিটি সংস্থার সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন এমবাপে।

প্রিমিয়ার ডি করডির মুখপাত্র সেবাস্তিয়ান রাফিন লে পেরিসিয়ানকে বলেন, ‘কাইলিয়ান দুর্দান্ত মানুষ। যখনই সুযোগ পান, উনি আমাদের সাহায্য করেন আনন্দের সঙ্গে।’

চ্যারিটি প্রতিষ্ঠানটিকে এমবাপে আগেই প্রতিশ্রুতি দিয়ে রেখেছিলেন। যদিও প্রতিষ্ঠানটি প্রথমে বিষয়টা খুব একটা আমলেই নেয়নি। কারণ গাছে কাঁঠাল, গোফে তেল দিতে রাজি ছিলেন না তারা। সেবাস্তিয়ান রাফিন বলেন, ‘বিশ্বকাপের কিছুদিন আগেই এমবাপে এবং তার পরিবার এ ধরনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। তবে আমরা এ নিয়ে খুব এগোইনি। কারণ, তার বোনাস পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হবে কেবলমাত্র ফ্রান্স কোয়ার্টার ফাইনালে উঠলে। তবুও তিনি সব সময় এ নিয়ে আমাদের বলে যেতেন।’

চ্যারিটি প্রতিষ্ঠানের ওই কর্মকতা আরও বলেন, ‘এটা একজন খেলোয়াড়ের সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত ইচ্ছা থেকে করা কোনো ভালো কাজ। আমরা কখনোই পৃষ্ঠপোষকদের কাছে আর্থিক সহযোগিতার জন্য ধর্না দেই না।’

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!