বুধবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপ ফুটবলে এদেশীয় সমর্থকদের অতি উৎসাহী আচরণ প্রসঙ্গে কিছু কথা…

 
খায়রুল হাসান রুবেল:
আসন্ন বিশ্বকাপ ফুটবলকে কেন্দ্র করে স্বজাতির উন্মত্ততার উলঙ্গ বহিঃপ্রকাশ দেখে ভীষণ লজ্জা হচ্ছে। আর্জেন্টিনা এবং ব্রাজিলের এদেশীয় এক শ্রেনীর উন্মাদ সমর্থকদের পাল্টাপাল্টি আক্রমানাত্মক দৃষ্টিভঙ্গি দেখ মনে হয় আমরা যেন আর্জেন্টিনা কিংবা ব্রাজিলের পক্ষে নির্বাচনী লড়াইয়ে নেমেছি বাংলাদেশের মাটিতে।বিশ্বায়নের এই যুগে আমরা পৃথিবী থেকে আলাদা নই।খেলার মাঠে কোন একটি বিশেষ দলকে সমর্থন করতে দোষের কিছু নেই।কিন্তু তার মানেতো এই নয় যে এমন নোঙ্গরামিতে মত্ত হতে হবে।
গোটা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যেন এক খিস্তি খেউরের অদ্ভুত রঙ মঞ্চে পরিণত হয়েছে।কোন একদল মেসিকে কদর্য ভাবে উপস্থাপন করছে আবার কোন একদল নেইমারকে।আমি বুঝিনা আর্জেন্টিনা কিংবা ব্রাজিল কিংবা অন্য কোন দেশ যেই কাপ জিতুক না কেন আমাদের কি যায় আসে।যে সব তারকাদের নিয়ে এত মাতামাতি তারা বাংলাদেশ সম্পর্কে জানেন কিনা সেটাই তো সন্দেহ (যদিও তাদের জানা না জানায় আমাদের কিছু আসে যায়না)। তাছাড়া আমাদের এই নগ্ন সমর্থনের চিত্রটা হয়ত তাদের সামনে উপস্থাপন করা হলে তাদের জন্য দিন কয়েকের হাসির খোরাক হবে আর কি, এর বেশি কিছু না।
দুনিয়ার আর কয়টা দেশে আমাদের মত এমন ঘরের খেয়ে বনের মোশ তাড়ানো জাতি আছে আমার জানা নেই। তবে আমরা যে এ কাজে সিদ্ধহস্ত সে প্রমাণ আমরা ইতিমধ্যে দিয়েছি।
খেলা শুরু হতে এখনও ঢের সময় বাকি।এখনই যেভাবে আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল,কিংবা অন্যান্য দেশের পতাকায় দেশটা ছেয়ে যাচ্ছে তাতে করে এত রক্তের দামে কেনা বাংলাদেশের পতাকাটা যেন কেবলই নতজানু হয়ে পড়ছে।আবার কেউ কেউ বাংলাদেশের পতাকাটাকেও অসম্মানজনক ভাবে উপস্থাপন করছে। কেউ তো আবার বাড়ির রং পর্যন্ত বদলে ফেলেছে।কেউ
কেউ দেখছি আবার নিজ নিজ পছন্দের তারকাদের পক্ষে লাইক, কমেন্ট আর শেয়ার প্রত্যাশা করে লিখছে অমুক জিতলে ফেসবুক চালাবো না,তমুক জিতলে ফেসবুক চালাবো না ইত্যাদি।যেন এতে কারো কিছু আসবে যাবে।এরা মনে হয় খোয়াব দেখছে খেলা বাদ দিয়ে মেসি কিংবা নেইমার এদের মানন ভাঙাতে আসবে।এসব বিষয় খুবই অনভিপ্রেত।
বিবদমান সমর্থক গোষ্ঠীগুলোকে এহেন অবস্থান থেকে সরে এসে নিজেদের উন্নত রুচির পরিচয় দেয়ার আহবান জানাচ্ছি।
শেষত,বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে আমার প্রত্যাশা থাকল আমরা যেন একটা চমৎকার প্রতিযোগিতামূলক নান্দনিক উপভোগ্য খেলা দেখতে পাই।যারাই কাপ জিতুক আগাম শুভেচ্ছা তাদের জন্য।সেই সাথে আমার পছন্দের দলটিও ভাল খেলুক এই প্রত্যাশাও থাকল।আর আমার প্রানপ্রিয় বাংলাদেশ ক্রিকেটের মাধ্যমে যেমন বিশ্ব ক্রিড়া অঙ্গনে দেশের মুখ উজ্জ্বল করেছে তেমনি কোন একদিন হয়ত ফুটবলের বিশ্ব আসরেও জায়গা করে নিবে এই প্রত্যাশাও থাকল।আমাদের সকল উত্তেজনা আর শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থা একমাত্র বাংলাদেশের জন্যই লালন করে রাখব।অন্য দেশকে সমর্থনের নামে রুচিহীনতার উলঙ্গ বহিঃপ্রকাশের মধ্য দিয়ে নয় বরং গোটা জাতি একত্রিত হয়ে একদিন বাংলাদেশের মঙ্গল কামণায় ক্রিকেটের মত ফুটবলেও সমন্বিত প্রার্থণায় লিপ্ত হব।
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
0Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

error: Content is protected !!