রবিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
আমার বাবা-ভাইকে ফাঁসানো হয়েছে -সংবাদ সম্মেলনে কন্ঠশিল্পী রুহী  » «   বিশ্বনাথে বখাটের উৎপাতে প্রাণ গেল কলেজছাত্রীর!  » «   আক্ষেপ ফুরোচ্ছে সিলেটের : শুরুতে নিজেদের শেষটা রাঙাতে চায় বাংলাদেশ  » «   লন্ডন প্রবাসী সিলেটের সাফওয়ান জাতীয় বক্সিংয়ে চ্যাম্পিয়ন  » «   ব্রি‌টে‌নে ১০ বছ‌রে সবচেয়ে বড় ভূ‌মিকম্প অনুভূত  » «   সিলেটে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন, শ্বশুড়-শ্বাশুড়ী আটক  » «   অবসরের সিদ্ধান্ত অর্থমন্ত্রীর!  » «   জগন্নাথপুরে জমি নিয়ে বিরোধের সংঘর্ষে প্রবাসী নিহত, আহত ১০  » «   ১৫ বছরের আক্ষেপ কাটল মদন মোহন কলেজ ছাত্রলীগের  » «   দক্ষিণ ছাতক উন্নয়ন পরিষদ সিলেটের কমিটি পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত  » «  

গরুর মালিকের সন্ধানে পুলিশের বিজ্ঞপ্তি!

সুরমা নিউজ:

সিলেটে একটি প্রাইভেটকার থেকে উদ্ধার হওয়া গাভী ও বাছুর নিয়ে বিপাকে পড়েছে পুলিশ।গাভি ও বাছুরের মালিকের খোঁজে গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে পুলিশ।

এক মাস আগে ‘পরিত্যক্ত’ অবস্থায় উদ্ধারকৃত গাড়ি, গাভী ও বাছুরের মালিকের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। এ অবস্থায় বুধবার গণমাধ্যমে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে সিলেট মহানগর পুলিশ (এসএমপি)। বর্তমানে উদ্ধারকৃত গাড়ি ও গরু মোগলাবাজার থানায় রয়েছে বলে জানিয়েছেন এসএমপির মুখপাত্র অতিরিক্ত উপকমিশনার মুহম্মদ আবদুল ওয়াহাব।

পুলিশের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, ২০১৭ সালের ১১ ডিসেম্বর ফেঞ্চুগঞ্জ সড়কের লালমাটিয়া এলাকা থেকে সাদা রঙের একটি প্রাইভেটকার পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়, যার রেজিস্ট্রেশন নম্বর ঢাকা মেট্রো ক ০৩-৯২২৩। এ সময় গাড়ির ভেতরে পেছনের সিটে বাঁধা অবস্থায় হালকা ছাই রঙের একটি গাভী এবং লালচে হালকা সাদা রঙের ৫-৬ মাসের একটি বাছুর পাওয়া যায়। এ অবস্থায় পুলিশের পক্ষ থেকে মোগলাবাজার থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়। মোগলাবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন সমকালকে বলেন, উদ্ধারকৃত গাড়ির রেজিস্ট্রেশন নম্বর অনুযায়ী খবর নিয়ে দেখা গেছে, তা সঠিক নয়। অন্যদিকে কেউ এসে গাড়ি বা গরুর মালিকানাও দাবি করেনি। ফলে উদ্ধারকৃত গাভী ও বাছুর কয়েক দিন থানায় রাখার পর বাধ্য হয়ে একজনকে লালন-পালনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এ জন্য প্রতিদিন ২০০ টাকা করে খরচ হচ্ছে বলে জানান ওসি আনোয়ার।

এসএমপির অতিরিক্ত উপকমিশনার মুহম্মদ আবদুল ওয়াহাব জানান, গাড়ি ও গরু-বাছুরের প্রকৃত মালিককে মোগলাবাজার থানার ডিউটি অফিসার (০১৭৯১-১১১৩৪৯) বা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (০১৭১৩-৩৭৪৫১৯) সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

সর্বশেষ সংবাদ