বুধবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

তানিম হত্যা : চার মাস থেকে জেলে, তবুও আসামি জুনেদ!

সুরমা নিউজ ডেস্ক:
গেল বছরের সেপ্টেম্বর থেকে জেলহাজতে রয়েছেন জুনেদ আহমদ। অথচ তাকেই আসামি করা হয়েছে গত রবিবার (৭ জানুয়ারি) টিলাগড়ে ছাত্রলীগকর্মী তানিম আহমদ খান খুনের ঘটনার মামলায়। এ নিয়ে হতবাক জুনেদ আহমদের স্বজনরা।

অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে গত রবিবার রাতে সিলেট নগরীর টিলাগড় পয়েন্টে প্রতিপক্ষের হাতে খুন হন ছাত্রলীগকর্মী তানিম খান। এ ঘটনায় গত বুধবার রাতে তানিমের বন্ধু দেলোয়ার হোসেন রাহী বাদী হয়ে শাহপরান থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় ২৯ জনের নামোল্লেখ করে আসামি করা হয়েছে। তাদের একজন জুনেদ আহমদ (২৪)।

সিলেট নগরীর রাজপাড়া সুরভী আবাসিক এলাকার ১২নং বাসার সিরাজুল ইসলামের ছেলে জুনেদ। তার বাবা বলছেন, জুনেদ গেল সেপ্টেম্বর থেকে কারান্তরীণ। তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, কারাগারে থাকা অবস্থায় জুনেদ কিভাবে তানিম খুনে জড়িত থাকতে পারে।

জুনেদ আহমদের বাবা সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘২০১৭ সালের জানুয়ারিতে গোলাম চৌধুরী রাজনের উপর হামলার ঘটনার মামলায় আসামি ছিল জুনেদ। ওই মামলায় গত ২৪ সেপ্টেম্বর জুনেদ আদালতে আত্মসমর্পণ করলে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। পরে নভেম্বর মাসে ওই মামলায় জুনেদের জামিন হয়। কিন্তু তার বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে ২০১৪ সালের একটি মামলা থাকায় সে জেলহাজত থেকে মুক্তি পায়নি।’

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা গোলাম চৌধুরী রাজনের উপর ২০১৭ সালের ৩০ জানুয়ারি রাতে নগরীর টিলাগড়ে হামলার ঘটনা ঘটে। ওই সময় রাজনের সাথে ছাত্রলীগকর্মী তানিম (যিনি খুন হয়েছেন) ও মাবরুরও ছিলেন। হামলায় গুরুতর আহত হন রাজন। এ ঘটনায় তার ভাই গোলাম হাসান চৌধুরী সাজন বাদী হয়ে ১০ জনের নামোল্লেখ করে শাহপরান থানায় মামলা (জিআর-২৪/২০১৭) করেন। মামলায় জেলা ছাত্রলীগের তৎকালীন সহ-সভাপতি ছয়েফ খান, জুনেদ আহমদ, মঞ্জুর আহমদ, হাসান, কামরান আহমদ, উজ্জ্বল, সাগর, রুমান আহমদ, অসীম ও জামিল আহমদের নামোল্লেখ ছিল।

তানিম হত্যা মামলার আসামি জুনেদ আহমদের বাবার দাবি, ওই মামলার আসামি হিসেবেই গেল ২৪ সেপ্টেম্বর আদালতে আত্মসমর্পণের পর জেলহাজতে যান জুনেদ। এরপর থেকেই তিনি জেলে রয়েছেন।

জুনেদ আহমদের বাবা সিরাজুল ইসলাম বলছেন, ২০১৪ সালে দায়েরকৃত দ্রুত বিচার আইনের মামলায় পাঁচ বছরের সাজা হয়েছে জুনেদের। ফলে রাজনের উপর হামলার মামলায় জামিন হলেও তিনি (জুনেদ) কারামুক্ত হতে পারছেন না। তবে দ্রুত বিচার আইনের মামলাও জামিন নেয়ার চেষ্টা চলছে।

এদিকে, ছাত্রলীগকর্মী তানিম আহমদ খান হত্যার আসামি হিসেবে জুনেদকে গ্রেফতার করতে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর তার বাসায় অভিযান চালায় শাহপরান থানা পুলিশ। ওই সময় জুনেদ কারাগারে থাকার বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করেন তার বাবা সিরাজুল ইসলাম।

সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘বাসায় পুলিশ এসেছিল। আমরা জুনেদ কারাগারে থাকার কাগজপত্র দেখিয়েছি। সে যে সেপ্টেম্বর থেকে কারাগারে রয়েছে, তা পুলিশকে জানিয়েছি। বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশ বিস্মিত হয়েছে।’

এ বিষয়ে সিলেট মহানগরীর শাহপরান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার হোসেন বলেন, ‘জুনেদ আহমদের বিষয়ে পুলিশ তদন্ত করে দেখবে। তিনি যদি কারাগারে থেকে থাকেন, তবে সে অনুযায়ী তানিম হত্যা মামলার চার্জশিটে তার আসামি হওয়া না হওয়ার বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

সর্বশেষ সংবাদ